ক্যারিয়ার নিয়ে চিন্তায় থাকেন অনেকেই।  কোথায়, কী বিষয়ে পড়বেন, পড়া শেষে এর মূল্যায়ন কেমন হবে, চাকরির বাজারে সে বিষয়ের চাহিদা কেমন—এ সব বিষয় নিয়ে অনেকেই হতাশ হয়ে পড়েন।  কোন বিষয় ভাল, কোনটা মন্দ—তা নির্ধারণ করা নিয়েও অনেকে ভুল সিদ্ধান্ত নেন।  জীবনের শুরুতেই ভুল সিদ্ধান্ত নিলে পরে আর সঠিক অবস্থানে ফিরে আসা যায় না।  সময়ের সঙ্গে সঙ্গে পাল্টে গেছে অনেক কিছু এবং মানুষের কর্মক্ষেত্রে এসেছে পরিবর্তন।  ঠিক তেমনি যুগোপযোগী পেশা ফ্যাশন ডিজাইন / * মার্চেন্ডাইজিং / * প্যাটার্ন ডিজাইন এন্ড ক্যাড   এইচএসসি, বিবিএ, এমবিএ, অনার্স কিংবা গ্রাজুয়েশন করার পাশাপাশি যে কোন বয়সের শিক্ষার্থীরা সাধারণ পড়াশোনার পাশা-পাশি ফ্যাশন ডিজাইন / * মার্চেন্ডাইজিং / * প্যাটার্ন ডিজাইন এন্ড ক্যাড প্রশিক্ষণ নিয়ে শুরু করতে পারেন আকর্ষণীয় এই পেশা।  কোর্সের মেয়াদ সমূহঃ  ৬ মাস মেয়াদি  (সংক্ষিপ্ত) কোর্স এবং ১ বছর মেয়াদি (পূর্ণাঙ্গ)  কোর্সে  বিভিন্ন শিফটে ক্লাসের ব্যবস্থা আছে।   যার ফলে আপনি আপনার সুবিধা অনুযায়ী যে কোন শিফটে ক্লাস করতে পারবেন।  <</>> ফ্যাশন ডিজাইনিং কিঃ সময়ের চাহিদাকে মাথায় রেখে বিভিন্ন শ্রেণির ক্রেতাগোষ্ঠীর সাধ এবং সাধ্যকে সমন্বয় করে ডিজাইন ও রঙের অপূর্ব সমন্বয়ে যারা আপনার পছন্দের পোশাকটি তৈরির পূর্বে নকশা বা রূপ রেখা তৈরি করে থাকেন, তারাই ফ্যাশন ডিজাইনার।   কোর্সের অর্জিত শিক্ষা ও দক্ষতার মাধ্যমে হতে পারে আজ থেকে ৩ বছর পরে আপনারই ডিজাইন করা পোশাক বিক্রি হবে কোন বিখ্যাত ব্রান্ড সপে আর আপনিই হবেন সেই বিখ্যাত ব্রান্ডের এক জন সফল উদ্যোক্তা।  আপনার কর্মমূখী, রুচিশীল ও সৃজনশীল ধারণা গুলোকে কাজে লাগিয়ে ক্যারিয়ার গড়তে পারেন ফ্যাশন ডিজাইনে।  আগ্রহ থাকলে শুধু একটি পেশাদারী কোর্সের মাধ্যমে শুরু করতে পারেন আকর্ষণীয় ও সম্মানজনক এই পেশা।  সৃজনশীল পেশায় ফ্যাশন ডিজাইনার হয়ে নিজেকে মেলে ধরার সময় এখনি... ।   <</>> মার্চেন্ডাইজার ও মার্চেন্ডাইজিং কিঃ তৈরি পোশাক শিল্পের পণ্যের উৎপাদন থেকে শুরু করে বিপণন বা বাজারে বিক্রি পর্যন্ত পুরো প্রক্রিয়া গুলো যিনি নিপুণ দক্ষতার সঙ্গে তত্ত্বাবধান করে থাকেন তিনিই মার্চেন্ডাইজার।  আর এ প্রক্রিয়া বা পেশাকেই বলা হয় মার্চেন্ডাইজিং।  এটি যথেষ্ট সম্মানজনক ও আকর্ষণীয় পেশা এবং এর বেতন অন্য যে কোন পেশার তুলনায় একটু বেশি।  পেশাটি যথেষ্ট চ্যালেঞ্জিং এবং বেতনও অনেক, আর অল্প সময়ে হওয়া যায় বাণিজ্যিক উদ্যোক্তা।  তাই ক্যারিয়ার ভাবনায় পোশাক শিল্প হতে পারে আপনার প্রথম পছন্দ।   <</>> প্রশিক্ষণ শেষে নিজ যোগ্যতায় বায়িং হাউস বা ফ্যাশন হাউসে, এক জন Fashion Designer বা Merchandiser/ asst. Merchandiser, Commercial Officer, AGM, PM, Technical Officer, TQM Officer, IE (Industrial Engineering) Manager/ Officer, Pattern Designer বা cad Specialist, যে কোন পদে চাকুরি অথবা ব্যবসায় মাধ্যমে ক্যারিয়ার গড়তে পারবেন।  যোগ্যতার ভিত্তিতে যার প্রারম্ভিক বেতন ২০,০০০/- থেকে ৩৫,০০০/- টাকা।  তবে অভিজ্ঞতা এবং কর্মদক্ষতার ভিত্তিতে আছে অনেকদূর পর্যন্ত যাওয়ার সুযোগ।  এই পেশায় আসার তিন থেকে পাঁচ বছরের মাথায় একজন মার্চেন্ডাইজার / ফ্যাশন ডিজাইনারের বেতন এক থেকে দের লাখ টাকা ছাড়িয়ে যেতে পারে।  শুধুই কি চাকুরি, একজন মার্চেন্ডাইজার / ফ্যাশন ডিজাইনার কয়েক বছরের অভিজ্ঞতা এবং কর্ম জীবনের অর্জিত অর্থের ভিত্তিতে এক পর্যায়ে নিজেই শুরু করতে পারেন বায়িং হাউজ বা গার্মেন্টস্‌ ফ্যাক্টরি।  এমন অনেক বাস্তব উদাহরণ রয়েছে বাংলাদেশের পোশাক শিল্পে।  <</>> আজকের একজন দক্ষ্য মার্চেন্ডাইজার / ফ্যাশন ডিজাইনারই হবে আগামী দিনের গার্মেন্টস /বায়িং হাউসের সফল উদ্যোক্তা।  আপনি যদি তাদের মধ্যে একজন হতে চান তবে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ফ্যাশন এন্ড ডিজাইন টেকনোলজি (বি,আই, এফ,ডি,টি)-এর ৬ মাস বা ১ বছর মেয়াদি মার্চেন্ডাইজিং/ফ্যাশন ডিজাইন/প্যাটার্ন ডিজাইন এন্ড ক্যাড কোর্স করুন।  সৃজনশীল এ পেশায় চাকুরি অথবা ব্যবসায়ের মাধ্যমে আপনিও হয়ে উঠুন একজন কর্মময় ও সফল মানুষ।   <</>> কর্মজীবীদের জন্য শুক্রবার ও সান্ধ্যকালীন বিশেষ ব্যাচ।   admission last date 15th october 2018

Fashion Design Videos

Top